Categories
কবিতা

বঙ্কিম কুমার বর্মনের গুচ্ছকবিতা

পায়েস

মেয়েটির স্নানে নেচে গেয়ে গেল বাঘগন্ধ
আমরা তো বিষের সন্ধানী, দোদুল্যমান!
খুঁটে রেখেছে গ্রাস অজস্র দাগ

এ দেহ কি পরমান্ন পায়েস বাটি ?

সবুজ সংবাদ

যদিও দূরত্বে দাঁড়িয়ে ছেলেটির ওড়াউড়ি
খুব কাছে শুয়ে কয়েকটি মাছির মামলা
ওঠো মধ্য বর্তীটুকু পেরোলেই, শহর ডাকে
কয়েকটি গহিন রেখার পালকের সবুজ সংবাদ।

বয়ে যাব

শ্রমে পাহাড় দাও আমাকে
শস্যে অথবা জমির কোল
ছুঁয়ে দেখি অংশত— ফেরারী মন
নেমে এলে বয়ে যাব রাতের কাজল।

দায়

বলো, কে-বা কাকে চায় ঘুমপাড়ানি গান
অগ্নিদাহ ফলালে, নিঃশ্বাসে ত্রিমাত্রিক স্নান
শুধু বুঝে নেওয়া আমাকে আতিথ্যে প্রমাণ।

সাঁতার

জেনে রাখা অংশত তুমিই বিরতি গনগনে
কিছু ভালোবাসা ভাসে মেঘমায়া জলে
অন্তঃপুর বৃষ্টিদিন প্রতীক সাজালে
হে অনুর্বর সাঁতার দাও কৃষাণীর পায়ে।

One reply on “বঙ্কিম কুমার বর্মনের গুচ্ছকবিতা”

‘হে অনুর্বর সাঁতার দাও কৃষাণীর পায়ে’। শুরুর দিকের ও শেষের কবিতাটি খুব ভালো লাগল। অভিনন্দন, বঙ্কিম। তবুও প্রয়াসের জন্য নিরন্তর শুভেচ্ছা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *