Categories
অনুবাদ কবিতা

লরেন্স ক্যারাদিনি’র কবিতা

ভাষান্তর: অনিমেষ সাউ

এবং আবার

সেই পাখিটা ফিরে গেছে।
আমি অপেক্ষা করছি,
আমি তার অভিলাষ,
সে আলের ওপর বসে আছে ,
বাম হাতের ওপর কিচির-মিচির করছে
স্বাধীনভাবে বসে থাকা একটা চড়াই ।

আমাদের পুনর্মিলনের যদি কোনো সময় থাকে

তবে এটাই ।

এখন।

***

লগবগে মাথা

ছোটো ভিনাইল কৌটো
এই পেয়ালা
এবং মটরশুঁটি।
গান ধরো-গাও-গাও
ওগো পেয়ারি,
বাগিচার কাঁটা,
আমাকে পড়ো
শহর নয়।
শহরতলী—
নদীর বাকে।       নদীর বাঁকে।

***

বাইর

এখানে যেখানে বাতাসে ঘোড়ারা ছোটে
সেই জানালা
এবং
অসংখ্য টেবিল
নুয়ে পড়া গাছ ও সারস
হাঁটুগুলো পেরিয়ে গেছে
চোখের সামনে কোনো ছাপ না রেখে
(অন্য এক স্বাদ)
আমার অভিলাষ
কেউ ভাঙছে না
একটা
হাত
অন্য
হাতে
তালি বাজাচ্ছে

***

বাহির

তারা হাঁটছে,
গাড়ি পাচ্ছে না।

তারা হাসছে,
কথা বলছে না।

আমাদের মধ্যে দিয়ে চলে গেল—

জ্যোৎস্নালোকিত ছায়া
সবেমাত্র এখানে পড়েছে

দেখছ।

***

দ্বিতীয় চেহারা

আমি
মনেকরি
সে
ভোজন রসিক
কিন্তু আমি অনেকক্ষণ তাকিয়ে দেখেছি
একটা
ইতর।

কবি পরিচিতি:

18 April 1953, নিউইয়র্কে জন্মগ্রহণ করেন Lawrence Carradini. জীববিদ্যায় স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর। Bouillabaisse, The Boston Poet, The Cafe Review-এর মতো বিখ্যাত পত্রিকায় তাঁর কবিতার প্রকাশ। বিভিন্ন কবিতা সংকলন যেমন— Dialogue Though Poetry-2001, Concept#3-তে তাঁর কবিতা সংকলিত হয়েছে। সম্প্রতি Contemporary Foreign Literature নামক জার্নালে তাঁর কবিতা চীনা ভাষায় অনূদিত হয়েছে। VB Documentation Enterprise থেকে মুদ্রিত হয়েছে তাঁর কাব্যগ্রন্থ BURNING HEADS। পরবর্তী সময়ে Lowell-এর বাসিন্দা Carradini, Lowell Celebrates Kerouac-এর পরিচালন সমিতির সভাপতি পদে নিযুক্ত ছিলেন।

4 replies on “লরেন্স ক্যারাদিনি’র কবিতা”

প্রতিটি কবিতাই ইঙ্গিতময়।
ছোটো কিন্তু অনেকদূর পর্যন্ত ভাবায়।
অনিমেষ সাউকে ভালোবাসা, এই কবির কবিতা প্রথম তাঁর অনুবাদেই পড়লাম।

কবিতা পডে বেশ আনন্দ পেলাম।খুব পাখির ডানার মতো ভেসে ভেসে চলে যাচ্ছে। সুন্দর সংকেত ধ্বনি। বাংলা উচ্চারণে বেশ বেজেছে। তবে ইংরেজি কবিতা আগে পড়িনি।
অনিমেষকে ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *