Categories
গদ্য

রুদ্রদীপ চন্দের গদ্য

ফাগুন হাওয়ায় হাওয়ায়

দিবানিদ্রার শেষে শ্মশান ডেকেছে তাকে। একঘুমে কত অনন্ত পার হয়ে গেছে। সকালের প্রাইমারি স্কুল, সবুজ পাতার দল তারপর… ফিরে আসা শস্যক্ষেত, খাল পাশে রেখে। একসময় নদী নেই বলে আপশোষ হতো তার। অবশ্য কত আপশোস সন্ধ্যের মতো ঝুলে আছে জীবনে। ওরা থাকে, যেভাবে স্বর্ণলতা। যেভাবে চাঁদ ঝুলে থাকে চন্দ্রাহতের জীবনে।

Categories
কবিতা

তৃষা চক্রবর্তীর গুচ্ছকবিতা


ভাবি খুব সহজ হবে লেখা
হিম পড়ার মতো প্রথম শীতের
‘গায়ে কিছু দিলি না’, মৃদু ভৎর্সনা—
আর কোনো নদী নেই আমাদের

Categories
কবিতা

আচ্ছন্ন দত্তের গুচ্ছকবিতা

জাদুবিশ্বাস

দেখা হয় না অনেকদিন
দেখা হয় না আমার দেওয়া চিহ্ন হিসাবে
ওর হাতে আমার হাতের ছাপ।

একদিন হাত ধরেছিলাম ওর,

Categories
গল্প

দেবজ্যোতি রায়ের গল্প

এইসব গ্রামীণ ঠেক

উপেন খুড়ো চায়ের দোকানের প্রভাতি আসরে, ঠিক চায়ের দোকানও নয়, আসলে গ্রামের একমাত্র মিষ্টির দোকান, আগে লোকে বাড়িতে অতিথি এলে, তবে চায়ের ব্যবস্থাও আছে, অনেকেই পুরি-তরকারি, মাঝে কিছুদিন বন্ধ ছিল, এখন ছাড় যেহেতু, অন্তত হাফবেলা, ফলে সকালের এই সময়টুকু, সেই কবে থেকে অভ্যাস, সবকিছু তুড়ি মেরে উড়িয়ে, অনেকেই বাড়ি থেকে এক-দুই-তিন-চার, বাজারও তো বসে,

Categories
গদ্য

ঈশিতা দেসরকারের গদ্য

গান

ভোরের আজান শুনতে পাই না আজ একমাস। রেল লাইন পেরিয়ে কুমারডাঙ্গি থেকে বেশ কয়েক বছর চলে এসেছি এ-পাড়ায়। আমার কিশোরীবেলা পর্যন্ত নানাবিধ মেঘমল্লার ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে কুমারডাঙ্গির এধারে ওধারে। ও-পাড়াতে একটা মসজিদ আছে। দীর্ঘদিন রোদে রাখা পেস্তার মতো তার রং। মসজিদের কাঁধ ঘেঁষে জুনিয়ার হাই স্কুল। উলটো দিকে আটচালা ঘর।

Categories
কবিতা

তিতাস বন্দ্যোপাধ্যায়ের কবিতা

জীবন রাতখোর

পরিযায়ী

সমস্ত জেগে থাকায়
মাথার ভেতর ওড়ে শঙ্খচিল…
জীবনের কাছে একটামাত্র সিগারেট চেয়েছিলাম!

Categories
কবিতা

অনুপম মণ্ডলের গুচ্ছকবিতা

গন্ধর্ব-নগরের জন্য লেখা

মৌরির গন্ধের মতো, রক্তিম, তাঁর আভোগ, ঢলে পড়ে কোথাও বাতাসে। বাসকলতার পাশে, ঘুমের শাখাগুলো নুয়ে আছে। গিয়েছে ঝরে বটের বুড়ি পাতা। কারা, ওই থোকা থোকা আঁধার নিঙড়ায়ে, মধুকূপি ঘাসের পরে রেখে যায়।

Categories
গল্প

চমক মজুমদারের গল্প

ওই লোকটা মানস নয়

অফিস থেকে বাড়ি ফিরে জুতো খুলতে খুলতে বাড়ির পরিবেশটা বোঝার চেষ্টা করে মানস সরকার। অচেনা লাগে। অন্যান্য দিন বেল বাজলে দরজা খুলে ওর কাঁধের অফিসের ব্যাগটা নিয়ে নেয় স্ত্রী শুক্লা।

Categories
কবিতা

দেবাশিস সাহা’র গুচ্ছকবিতা

চোতক্ষ্যাপা

দারুচিনির দেশে
কেউ কেউ নেমেছে দারুর খোঁজে
চিনি নিয়ে আগ্রহ নেই মধুমেহ প্রেমিকের

স্লেট থেকে ভাগ্যরেখা মুছে

Categories
কবিতা

মারুফ আহমেদ নয়নের গুচ্ছকবিতা

নিষেধাজ্ঞা

নিষেধাজ্ঞা জারী হলো, আমার মুখের দিকে তুমি তাকিয়ো না। এই যে উচুঁ- নিঁচু খানা-খন্দক, পাহাড়-পর্বত, আলোর তীব্র ঝলকানি, তুমি পা পিছলে পড়ে যেতে পারো। জানো তো, আমার চোয়ালে রাগী পিপঁড়েদের বাসা। চোখের ভেতর সমুদ্র। তুমি স্নানের বাসনা নিয়ে খুলে ফেললে বুকের কাঁচুলি, আমার ভীষণ ভয় করে। আমি কাউকে বলি না, তোমার প্রেমে পড়ার স্বভাবে মৃত্যু আসে।