Categories
কবিতা

সুমন বন্দ্যোপাধ্যায়ের কবিতা

উন্মাদের দিনলিপি


শীতঘুমের ভেতর জোর করে ঢুকে যাচ্ছে বিষণ্ণ সানাই। আবহে কেউ কোথাও নেই। জলে ভিজে যাওয়া কয়েকটা দীর্ঘশ্বাস— হাতড়ে হাতড়ে তুলে আনছে মৃত নদীটির যোনিরোম। এ সবই চিত্রকল্প। বালিহাঁসদের পালক দিয়ে তুমিও নিশানা করেছ দিগন্তের রং।

Categories
অনুবাদ কবিতা

ন্‌কাতেকো মাসিঙ্গা-র কবিতা

ভাষান্তর: অনিন্দ্য রায়

সৃষ্টিতত্ত্ব

চ্যাপেলে ঢোকার পথে
মোজেইক রয়েছে মেঝেয়

মোজেইক মানে টুকরোদের জুড়ে বানানো একটা ছবি
মোজেইক মানে মোজেসের

Categories
কবিতা

সেলিম মণ্ডলের কবিতা

পাখি সব করে রব


নাচের স্কুলে তুমি কোন ময়ূর
মেঘ ডাকার আগেই ভুলে যাও পেখম তুলতে?


সেই হাঁড়িচাচাকে কি আজ খুঁজে পাওয়া যাবে

Categories
কবিতা

পঙ্কজ চক্রবর্তীর কবিতা

অভিশাপ

এড়াতে পারি না এই ঝোপঝাড় সবংশ এসেছে। আমার স্নায়ুর ভিতর পায়চারি করে সন্দেহজনক আলো। কাঁটায় কাঁটায় মানুষের মতো প্রত‍্যাখ‍্যান।

Categories
কবিতা

সৌমাভের গুচ্ছকবিতা

হ্যারিকেন

বাড়ির প্ৰাচীন হ্যারিকেনটির নাম ছিল শিব,
সাদাসিদে গোলগাল শান্ত সমাহিত সৌষ্ঠব,
ঝুপ করে নেমে আসত সন্ধেবেলায় পড়ার ঘরে,
শিবঠাকুরের চারদিকে আমরা গোল হয়ে বসতাম,

Categories
কবিতা

প্রীতম বসাকের কবিতা

আমার কবিতা

তিষ্ঠ ক্ষণকাল

তোমার অভিজ্ঞতার পাশে একটা কমলালেবু কতটুকু চোখের জল হয়ে উঠতে পারে। যে-কোনো উপন্যাসের শেষ পাতা পড়ে ফেলা যার অভ্যাস তাকে আর কতটা আহা দিতে পারে পাইন বনের ময়ূর।

Categories
কবিতা

সুকুমার মণ্ডলের গুচ্ছকবিতা

সম্পর্ক

বহুদূর পর্যন্ত ফাঁকা মাঠ। ছুটে আসছে
হতচকিত হাওয়া
নুয়ে পড়ছে বন, ডালপালা

এর নাম কি সম্পর্ক

Categories
কবিতা

অশোক দেবের গুচ্ছকবিতা

মৃৎবন্ধ্যা


কিছুই বেচতে পারেনি সে।
হাটের অন্ধকারে
ফেলে এসেছে মাটির তৈরি
বেহুলা লখিন্দর।

Categories
কবিতা

অর্ক অপুর গুচ্ছকবিতা

মোহনায় মন্থন যাত্রা


রঙের দাম বেড়েছে বলে সাদাকালো সংসারের দাগ ধরে আছে পাঠঘর। পড়শি আর স্বজনেরা সুযোগ পেলেই দাগে ঢেলে দেন— পাঠহীনতার উপহাস। সামান্য অপরাধ যোগ্যতা নেই বলে যে ঘরে প্রজাপতি ঢোকে না, সে ঘরের মানুষেরা “দাওয়াত বাড়িকে গোলাপ গন্ধ ভেবে” প্রতারিত হয়ে ফিরে এসে কাঁদে।

Categories
কবিতা

হিন্দোল ভট্টাচার্যের গুচ্ছকবিতা

উত্তরপুরুষ, তুমি

হরপ্পা

একটি সভ্যতা মরে যেভাবে, আত্মীয়স্বজনহীন, স্মরণ-অনুষ্ঠান ছাড়াই—
ঠিক তেমন মরে পড়ে আছে একটি রোঁয়া ওঠা শালিখ।

নির্জনে পচে যাচ্ছে একটি মৃতদেহ যার ইতিহাস আমরা জানি না