Categories
কবিতা

হাসান রোবায়েতের কবিতা

দুপুরের বন্ধন

কখনো এমন হয়, পাতাঝরা আইলের উপর দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে আমাদের মনে পড়ে—দক্ষিণের বাতাস চলে গেছে কতদিন আগে, কতদিন আগে পৃথিবীর বেহুলা নারী নিয়ে গেছে দূর রূপকথা, ভাসানের অবছিন্ন আলোয় থেমে গেছে রজনীল হাওয়া—

Categories
কবিতা

শতানীক রায়ের গদ্য

কুহকের লেখা ও অন্যান্য গদ্য

কুহকের লেখা

একটা কুহক নিয়ে জন্মেছি যেন। যত এগোচ্ছি কেমন অদ্ভুত দৃশ্য খুঁজে পাচ্ছি। পর্দা সরালেই জগতের বাহার। মাংস অদলবদল হওয়ার কারিগর হয়ে উঠছি ক্রমে। কেন কী কারণ— এ-সব নয় মানুষের শরীরে এইসব বার্তা মানায় না। সংশয় যখন তৈরি হতে থাকে একটা তীর্যক জীবনের রহস্য খুলে আসে। কেউ কাউকে ক্ষতি করছে না।

Categories
কবিতা

রাতুল ঘোষের গুচ্ছকবিতা

কাম


আগামী হপ্তায় মারা যাব, তবু তোমার ঐ কাম
সার্কাসে বাঘের মতো লাফ দেওয়ায় আমাকে আগুনগোলক
ভেদ করে। কেন এত শয্যাপরায়ণ বলো মৃত্যু আমাদের?

Categories
কবিতা

সেখ সাদ্দাম হোসেনের কবিতা

সঙ্গরোধের মেলানকলি


একটানা দীর্ঘদিন দরজা বন্ধ

একটানা দীর্ঘদিন কাঠি আর তালা
অনঘ দূরত্বে ঝুলে আছে

Categories
কবিতা

প্রশান্ত সরকারের গুচ্ছকবিতা

পাখিসর্বস্ব

পাখিদের কথা লিখতে গেলেই যথাসম্ভব ছোটো হয়ে আসে জানালা, প্রথাগত কৌতুহল থেকে সামান্য সচেতনতা উড়িয়ে দিলেই যেখানে দূরত্ব মাপা যেত সহজে, সেখানে কীসেরই বা প্রয়োজন ছিল এতসব বিবৃতির? পাখিদের কোনো মাইলফলক নেই, তাই যেতে যেতে একবারও চোখে পড়ল না ফিরে আসার উপায়…

Categories
কবিতা

পঙ্কজকুমার বড়ালের গুচ্ছকবিতা

গান

কেবলই মনে হয়, গভীর শোক এলে মানুষ গানের কথা ভাবে৷ যেমন তুকনামাই, হাজার বছর আগে তাঁর প্রিয় খরগোশটি নিয়ে গেল চিলে৷ সে তখন মুড়াকিরি পাহাড় থেকে উপত্যকার দিকে, গভীর উদাস করা একটি গান ভেসে যেতে দেখে৷ তাঁর কোনো সঙ্গী ছিল না৷ এমনই নির্জন যে, তাঁর স্তনে কখনো-সখনো মেদুর প্রজাপতি বসে৷

Categories
কবিতা

অর্ঘ্য কমল পাত্রের গুচ্ছকবিতা

মধ্যরাত: একাকী

১.
শহরের শালবনে
একা-একাই

তারা গুনছি…

Categories
কবিতা

নিয়াজুল হকের কবিতা

ক্ষুধার্ত সভ্যতা

আমাদের যাতায়াতের ট্রেনটা
ঘাসের মতো সবুজই থেকে গেল

অনেকটা গাছপালার মতো,

Categories
কবিতা

অমিতাভ মৈত্রের ১০টি কবিতা

সম্পর্ক

খুব ক্লান্ত স্প্যানিশে নৌকাটা তখন বলছিল
গ্লুকোমা আর রক্তচাপে কাহিল সমুদ্রের কথা
যেন লেবু মেশানো কালো চায়ের জীবন ক্রমশ স্বচ্ছ হয়ে উঠছে

Categories
কবিতা

বিপ্লব চক্রবর্তীর কবিতা

রা ষ্ট্র কো নো বি ষ য় না

শোনো
রাষ্ট্র কোনো বিষয় না
‘কৃষ্ণ কোথা গেল’ উড়ে যায়
সোনার জল করা তোমার মুখ