তাদেউশ রুজেভিচের কবিতা

ভাষান্তর: সমন্বয়

[তাদেউশ রুজেভিচ (৯ অক্টোবর ১৯২১-২৪ এপ্রিল ২০১৪), কবি নাট্যকার লেখক এবং অনুবাদক, ১৯৮১ সালে পোল্যান্ডের স্বাধীনতা লাভের পর প্রথম প্রজন্মের পোলিশ লেখকদের মধ্যে একজন, ১৯৩৮ সালে তাঁর কবিতা প্রথম প্রকাশ করেছিলেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় পোলিশ আন্ডারগ্রাউন্ড হোম আর্মিতে চাকরি করেন; তাদেউশ রুজেভিচ আন্তর্জাতিক আভা-গার্দ সাহিত্যের একজন পুনঃস্মরণীয় নাম]

অনুপ্রবেশ
[ Penetration ]

মৃত্যু
জালের ভেতর দিয়ে
আলোর মতন
ঢুকে পড়েছিল জীবনে
ঝুলে থেকেছিল একটা খোলা করিডোরে

এখন তার মৃত্যু-শয়নে
সে সরে যেতে যেতে
চিৎকার করছিল কৌশল আঁটছিল
সময়োচিত হতে চাইছিল

মৃত্যু হাড়ের ওপরে চেপে বসা
ধারাবাহিক মুখেদের সমস্ত গুণ
চেটে নিচ্ছিল…

 

সমাধান
[ Solution ]

আমি
কঠিন
এবং নত আমার একগুঁয়েমির কাছে
মোমের মতন
শুধু এভাবেই আমি পারি
পৃথিবীতে ছাপ ফেলতে

আমি তৈরি করি
[ I Build ]

আমি পা রাখি এক শার্সির ওপরে
এক আয়নার ওপরে
যা ভেঙে যায়

আমি পা রাখি ইয়োরিকের
খুলিতে
আমি পা রাখি এই পলকা
পৃথিবীর ওপর

আর একটি ঘর বানাই
একটি বাংলো বাতাসের মধ্যে
যার সবটাই বাজেয়াপ্ত
হতে চায়

শুধু আমিই
দেয়ালের
বাইরে
অবাক হয়ে থাকি

এখন
[ Now ]

এরপর
আমি অপেক্ষায় শুয়ে থাকব
যে কোনো সময়
কবিতা আমাকে আঘাত করতে পারে
উৎকণ্ঠায় ছটফট করে
আমি একটি ছবির পিছু নেব
এবং নিজের শ্বাস হারিয়ে ফেলব

এখন
আমি কবিতাদের
পালিয়ে যেতে দিই
মরে যেতে দিই
ভুলে যেতে দিই

এগোনো গেল না
উপলব্ধির পাশে

এই এলাকায় ফিরে
আমি চারিদিকে তাকিয়ে অবাক
এই সেই জায়গা যেখানে
কবিতা ঝাঁপ দিয়ে
উঠে এসেছিল

শুধু এমন কিছু কল্পনা করে নাও !
[ Just Imagine Such a Thing ! ]

“সুন্দরই সত্য
সত্যই সুন্দর”
একজনের ধক লাগে
এমন কিছু লেখার জন্যে

কিন্তু জন কিটস্‌-এর
এটি একটি জনপ্রিয় সূত্র
বিশেষজ্ঞেরা হেসেছিলেন আমার ওপরে
হালকা করে

তোমাকে সহমত হতেই হবে— আমি রিপ্লাই করি
কিটস্‌-এর ধক ছিল
কিন্তু আমি বরং বলব
সে এরকম কিছুই বলেননি…

হা হা হা
[ Laughter ]

খাঁচাটি বন্ধই ছিল যতক্ষণ
একটি পাখিকে হিঁচড়ে ঢোকানো হয়নি ভেতরে

পাখিটি চুপই ছিল যতক্ষণ না
খাঁচাটি নীরবে জং ধরতে ধরতে
খুলে গিয়েছিল

নীরবতা টিকেছিল যতক্ষণ
কালো পুতুলের ভেতর থেকে
আমরা হাসির শব্দ শুনিনি

ভয়
[ Fear ]

তোমার ভয় প্রগাঢ়
আধ্যাত্মিক
আমারটা কম মাইনের কেরানি
একটি বাক্স যার পুঁজি

একটি ফাইল
ও এক প্রশ্নাবলী সমেত
যখন আমি জন্মাই
সমর্থনের মানে কী ছিল
আমি কী করিনি তখনও
আমি কীসে বিশ্বাস করিনি

আমি কী করছি এখানে
কখন আমি অভিনয় থামাব
কোথায় আমি যাব
এরপর

স্মৃতিচিহ্নরা
[ Monuments ]

সন্দেহজনক
আমাদের স্মৃতিচিহ্নরা
বগলের ঢঙে গঠিত
আমাদের স্মৃতিলিপিরা
গঠিত
কান্নার মতন

তৈরি করেছে
গর্ত
আমাদের স্মৃতিচিহ্নরা
এই পৃথিবীর তলায়
আমাদের স্মৃতিচিহ্নরা
ধোঁয়ার আকারে তৈরি
তারা সরাসরি স্বর্গে চলে যায়…

পড়ে যেতে যেতে
[ Descending ]

এখন
পড়ে যেতে যেতে
আমি পেছনে তাকাই
আলস্যে কাটানো
আমি এক মানুষের মতো
যে কিছু একটা হারিয়েছে
কিন্তু আমি খুঁজি না তা
আমার চারপাশে

কখনও মাঝরাতে
আমার ভেতরে অথবা নির্দিষ্ট কোনো দুপুরে
আমার ভেতরে
আমি খুঁজি ও খুঁজে পাই
কেউ আমাকে খোলে এবং বন্ধ করে
আমি পেছনে তাকাই
এবং এগিয়ে যাই

তারা ভার ত্যাগ করে
[ They Shed the Load ]

সে তোমার কাছে আসে
ও বলে

তুমি দায়যুক্ত নও
পৃথিবী অথবা পৃথিবীর শেষের জন্য
তোমার কাঁধ থেকে ভার নামিয়ে রাখা হয়েছে
তুমি শিশু ও পাখিদের মতন
যাও, খেলো

এবং তারা খেলে বেড়ায়

তারা ভুলে যায়
সমকালীন কবিতার
মানেই নিঃশ্বাসের জন্যে লড়াই

সাক্ষী
[ Witness ]

প্ৰিয় আমার, তুমি তো জানো আমি ভেতরে
কিন্তু হঠাৎ ঢুকো না
ঘরের ভেতর

তুমি আমাকে দেখে ফেলতে পারো
এক ফাঁকা পাতার ওপরে
চুপ

ভালোবাসা সম্পর্কে
তুমি কী লিখতে পারো
যখন জবাই করা ও দগ্ধ মানুষের
কান্না শোনো তুমি
তুমি কী লিখতে পারো
মৃত্যু সম্পর্কে
শিশুদের
কচি মুখেদের দেখে দেখে

হঠাৎ ঢুকে পড়ো না
আমার ঘরে

তুমি দেখে ফেলবে
একজন বোকা ও বাধ্য
সাক্ষীকে যে ভালোবাসতে গিয়ে
মৃত্যুর দ্বারা পরাজিত

Spread the love

3 Comments

  • অসম্ভব ভাল। অনুবাদ সরল। সমাধান বেশশশশ ভাল।।।।।।।।।।।।।।।।

    তীর্থঙ্কর নন্দী,
  • সুন্দর.

    শতদল মিত্র,
  • ভালো লাগল।

    শীর্ষা,
  • Your email address will not be published. Required fields are marked *